ধানের সকল সমস্যা ও সমাধান । পর্ব-০১

ধানের-সকল-সমস্যা-ও-সমাধান

সারাবিশ্বে খাদ্যের প্রথম  তালিকায় ধান। কেননা বিশ্বের বেশিরভাগ মানুষের প্রতিদিন, প্রতিবারের পছন্দের খাবার ভাত। তাই কৃষক মানেই প্রথমত  ধান চাষ। আর ধান চাষ করতে গিয়ে কৃষক বিভিন্ন সময়ে নানারকম সমস্যা সমস্যার মুখোমুখি হন। ধান আবাদ করতে গেলে বিভিন্ন পোকা-মাকড়ের আক্রমণ, বিভিন্ন রোগ বালাই তাছাড়া প্রাকৃতিক দূর্যোগ তো আছেই। কৃষিতে এসব সমস্যার সমাধান করতে গিয়ে অনেক কৃষক বিপাকে পড়ে যান। ফলে ফসল আবাদ করে লাভের জায়গায় লোকসান হয়ে যায়।

কৃষকদের করার প্রচেষ্টা আমাদের কৃষি পরামর্শ। ধানের সকল সমস্যা ও সমাধান এটি ১ম পর্ব । খুজে নিন আপনার প্রশ্ন, সমস্যা ও সমাধান।

ধানের সকল সমস্যা ও সমাধান

FAQ – ধানের সকল সমস্যা ও সমাধানে প্রশ্ন ও উত্তর

সমাধান : বিঘা (৩৩ শতাংশ)  প্রতি এমকোজিম ৫০ WP, ৭০-৭৫ গ্রাম/ প্রয়োগ করতে হবে। অথবা স্কোর ২৫০ ইসি, ১ এমএল / ১ লি. পানিতে মিশিয়ে স্প্রে করতে হবে।সমস্যা- ১ :হিরা-৪ জাত ধানের চারা লাগানোর আগে কি কি সার ও ঔষধ দিতে হবে যাতে পরে পোকার আক্রমন না হয়?

সমাধান: প্রথমত হিরা-৪ ধানের চারা লাগাতে হবে ১৭-২০ দিন বয়সের। চারা রোপনের পর সেচের ব্যবস্থা করতে হবে। তিন সপ্তাহ পর ৫-৭ দিনের জন্য সেচ বন্ধ রেখে জমি একটু হালকা শুকানো ভালো। এরপর ২য় কিস্তিতে ইউরিয়া সার প্রয়োগ  করতে হবে।সারের পরিমাণ নিম্নরুপ :১.ইউরিয়া- ১১৫-১২৫ কেজিনির্দেশনা ও ব্যবহার পদ্ধতি : চারা রোপনের ৩-৭ দিন পর ১/৩ ভাগ, অবশিষ্ট ইউরিয়ার ১/২ভাগ চারা রোপনের ৪ সপ্তাহ পর এবং বাকি অংশ চারা রোপনের ৭ সপ্তাহ পর প্রয়োগ করতে হবে। সার প্রয়োগের কমপক্ষে ২-৩ দিন জমিতে  ২-৩ ইঞ্চি পানি রাখা বাঞ্চনীয়।২. টিএসপি- ৬০-৬৫ কেজিনির্দেশনা ও ব্যবহার পদ্ধতি :সার প্রয়োগ করতে হবে জমি তৈরির  জন্য জমি চাষ হওয়ার শেষ শেষ মুহুর্তে।৩. এমওপি: ৮০-৮৫ কেজি (জমি তৈরি করা)

সমস্যা ২ : বীজ ধান পানিতে ডোবার পর থেকে ধান গাছ মরে যাচ্ছে এর সমাধান কি?

সমাধান: যতদ্রুত সম্ভব জমি থেকে পানি বের করার ব্যবস্থা করতে হবে। তবে সাধারণ হিসাবে বন্যা প্রবণ এলাকায় ব্রি ধান ৫১, ব্রি ধান ৫২ জাতের ধানগুলো চাষ করা ভালো। কারণ এ জাতগুলো ২০ দিন পানিতে ডুবে থাকলেও খুব বেশি ক্ষতি হয় না।

সমস্যা ৩ : ধানে ফলন ভাল চাই। পোকা দমনের  জন্য কি ঔষধ দেব?

সমাধান: ভালো ফলনের জন্য “ফ্লোরা” অনুমোদিত মাত্রায় প্রয়োগ করতে হবে। ধানের পোকার জন্য “টিডো ২০ এসএল”/ “গুলি ৩ জি আর”- অনুমোদিত মাত্রায় প্রয়োগ করতে হবে।

সমস্যা ৪ : বীজ ধানে ক্ষেতে কাকড়া ধানের গোড়ালি কেটে দেয়। এর জন্য কি ঔষধ ব্যবহার করতে হবে।

সমাধান ৪ : ক্যারাটে ২.৫ ইসি – বিঘা (৩৩ শতাংশ) প্রতি ১০০ এম এল হারে প্রয়োগ করতে হবে ।

সমস্যা ৫ : ধান ক্ষেতে মাজরা পোকার আক্রমণ দেখা দিয়েছে। সেইসাথে পাতা পঁচা রোগ । গাছের উপরের দিকে পাতা ভালো আছে কিন্তু নিচের দিকে পাতা পঁচে পঁচে যাচ্ছে। এর সমাধান কি?

সমাধান : স্কোর ২৫০ ইসি, অনুমোদিত মাত্রায় প্রয়োগ করতে হবে, এটি মুলত পাতাপঁচা  দাগ দমনে কাজ করবে। আর মাজরা পোকা দমনে গুলী ৩ জি আর /রাইসন ৬০ ইসি, অনুমোদিত মাত্রায় প্রয়োগ করতে হবে।

সমস্যা ৬ : ধানগাছের রং লাল লাল হচ্ছে । এখন কি করা দরকার?

সমাধান : বিঘা (৩৩ শতাংশ)  প্রতি এমকোজিম ৫০ WP, ৭০-৭৫ গ্রাম/ প্রয়োগ করতে হবে। অথবা স্কোর ২৫০ ইসি, ১ এমএল / ১ লি. পানিতে মিশিয়ে স্প্রে করতে হবে।সাবধানতা : বাতাসের বিপরীতে স্প্রে করা যাবে না। স্প্রে করার সময় মুখে সুতি কাপড় বেধে নিতে হবে। ঔষধ শিশুদের নাগালের বাইরে রাখবেন।

সমস্যা ৭ : আমার ধান গাছে মাজরা পোকা কি ভাবে দমন করা যায়?

সমাধান : মাজরা পোকা ধানের জন্য খুবই ক্ষতিকর। তাই মাজরা পোকা দমনের জন্য বিঘা (৩৩ শতাংশ)  প্রতি  ফুরাকার্ব ৩ জি, ২.৫ কেজি  অথবা  বাসুডিন ১০ জিআর, ২.৫ কেজি  প্রয়োগ করতে হবে।

সমস্যা ৮ : ধানে পচন সমস্যার সমাধান কি?

সমাধান: এমকোজিম ৫০ WP, ৭০-৭৫ গ্রাম/বিঘাতে (৩৩ শতাংশ) প্রয়োগ করতে হবে। অথবাস্কোর ২৫০ এমএল / ১ লি. পানিতে মিশিয়ে স্প্রে করতে হবে।

সমস্যা ৯ : আমার সংরক্ষণ করা ধানে ফুটি পোকা আক্রমণ করেছে, এ অবস্থায় আমি কি করতে পারি?

সমাধান : ক্লোরোপাইরিফস গ্রুপের যেকোনো মেডিসিন অনুমোদিত হারে স্প্রে করার পর ধানের উপর পলিথিন দিয়ে তার নিচে ফক্সটোক্সিন ট্যাবলেট ছড়িয়ে দিতে হবে।নির্দেশনা : ধান স্টোর করার পূর্বে ভালোভাবে শুকিয়ে নেওয়া উচিত যাতে ধানে ১২-১৪% ময়েসচার থাকে।

সমস্যা ১০ : বিআর ২৯ ধান গাছ লাল হয়ে শুকিয়ে মারা যাচ্ছে। গাছের বয়স আনুমানি ২৫দিন। এর সমাধান কি?

সমাধান :১. ইউরিয়া সার তিন মাত্রায় প্রয়োগ করুন।২. জমির পানি শুকিয়ে ৭-১০ দিন পর আবার সেচ দিন।৩. ইউরিয়া সারের উপরি প্রয়োগ করা যাবে না।৪. বিঘা প্রতি জিপসাম ১ কেজি ৩৫০ গ্রাম হারে প্রয়োগ করতে হবে।

সমস্যা ১১ : বীজ তলায় ধানের চারার গোড়া পচে মরে যাচ্ছে। কি করব?

সমাধান: ফলিকুর ১০ লিটার পানিতে ৫ মিলি হারে মিশিয়ে স্প্রে করতে হবে।

সমস্যা ১২: ঠান্ডায় ধান গাছের পাতা মরে যাচ্ছে। করণীয় কি?

সমাধান: ক্ষেতের পানি ৭-১০ দিনের জন্য শুকিয়ে ফেলতে হবে।  বিঘা প্রতি ৫ কেজি পটাশ সার ছিপছিপে পানিতে ছিটিয়ে দিতে হবে।

সমস্যা ১৩ : মাজরা পোকার আক্রমন দেখা দিয়েছে। সমাধান কি?

সমাধান: যথা সম্ভব কীটনাশক পরিহার করা ভাল। বাসুডিন প্রতি ৩৫ শতাংশে ১ কেজি হারে প্রয়োগ করতে হবে।

সমস্যা ১৪ : বোরো বীজ জমিতে ছিটানো হয়েছে কিন্তু চারা বড় হচ্ছে না এবং চারার মাঝখানে পাতা লাল হয়ে যাচ্ছে এর উপায় কি?

সমাধান : প্রতি বিঘায় ১ কেজি ৩৫০ গ্রাম জিপসাম জমিতে ছিটিয়ে দিতে হবে।

সমস্যা ১৫ : ধানের পাতা খুব পরিমাণে লাল হয়ে যাচ্ছে। কি করা যায়?

সমাধান : প্রতি বিঘায় ১ কেজি ৩৫০ গ্রাম হারে প্রয়োগ করুন।

 সমস্যা ১৬ : ধান বীজ বপন করেছে কিন্তু মধ্যে মধ্যে পুরে গেছে?

সমাধান: বীজতলায় প্রতি বর্গমিটারে ১০ গ্রাম হারে জিপসাম প্রয়োগ করতে হবে।

সমস্যা ১৭ : ধানের জমিতে মাজড়া পোকা ব্যাপক আকারে মাজড়া পোকা আক্রমন করেছে এর প্রতিকার কি ?

সমাধান : ফুরাকার্ব ৩ জি, ২.৫ কেজি / বিঘাতে (৩৩ শতাংশ) প্রয়োগ করতে হবে। অথবা বাসুডিন ১০ জি আর, ২.৫ কেজি / বিঘাতে (৩৩ শতাংশ) প্রয়োগ করতে হবে। অথবা  গুলী ৩ জি আর, ১.৩৩ কেজি/ বিঘাতে (৩৩ শতাংশ) প্রয়োগ করতে হবে।

সমস্যা ১৮ : বোরো ধানের বীজতলা লালচে হয়ে নষ্ট হয়ে যাচ্ছে করনীয় কি?

সমাধান : প্রতি বিঘায় দস্তা সার ১ কেজি ৩৫০ গ্রাম হারে প্রয়োগ করতে হবে।

সমস্যা ১৯ : ধানের মাথায় মাকশার জাল তৈরি হয়েছে এখন এর করনীয় কি?

সমাধান : নোইন প্রতি লিটার পানিতে ২ গ্রাম হারে মিশিয়ে স্প্রে করতে হবে।

সমস্যা ২০ : ধানের শিষ কাটা পোকার আক্রমন দেখা দিয়েছে এখন এর করনীয় কি?

সমাধান : কারবারিল (৮৫ পাউডার) প্রতি একরে ৭০০ গ্রাম প্রয়োগ করতে হবে।

ধানের সকল সমস্যা ও সমাধান ১ম পর্বের পোস্টটি ভালো লাগলে শেয়ার করে সবাইকে দেখার সুযোগ করে দিন। ধানের অন্যান্য সমস্যা ও সমাধান পেতে পরবর্তী পর্বগুলো পড়ুন। ধর্য্যসহকারে পড়ার জন্য ধন্যবাদ।

আরও পড়ুন: ধানের সমস্যা ও সমাধান । পর্ব- ০২

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here